উত্তরবঙ্গ

আত্মপ্রকাশ করল রাভা জনজাতির নিজস্ব লিপি। নিজস্ব লিপিতে পঠন পাঠন চালুর দাবি রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল-এর।

আলিপুরদুয়ার, ২৭ সেপ্টেম্বরঃ আত্মপ্রকাশ করল রাভা জনজাতির নিজস্ব লিপি। সোমবার লিপি আত্মপ্রকাশ করে কালচিনি ব্লকের রাভা বস্তিতে। রাভা জনজাতির নিজস্ব ভাষা থাকলেও এতদিন ছিলনা এই ভাষার নিজস্ব লিপি। দীর্ঘ ৫ বছরের প্রচেষ্টার পর রাভা লিপি তৈরি হওয়ায় খুশি রাভা সম্প্রদায়ের মানুষজন। তারা আশাবাদী রাভা কোচ লিপি আবিষ্কারের ফলে এই ভাষায় লিখতে পড়তে সুবিধা হবে এই জনজাতির ছেলেমেয়েদের।

ভারতবর্ষের লুপ্তপ্রায় জনজাতিদের অন্যতম রাভা জনজাতি। এই জনজাতির ভাষাকে সংরক্ষিত করে রাখতে উদ্যোগি হয়েছে রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল। এই কাউন্সিলের দাবি সারা ভারতে আসাম মেঘালয় ও পশ্চিমবঙ্গে রাভা জনজাতির মানুষের সংখ্যা ১২ লক্ষ। রাভা জনজাতির নিজস্ব ভাষা সংস্কৃতি থাকলেও ছিল না নিজস্ব লিপি। ফলে এই জনজাতির মানুষেরা পড়া লেখার ক্ষেত্রে নির্ভর করতে হোত মেঘালয়ে গাড়ো, আসামে অসমিয়া আর পশ্চিমবঙ্গে বাংলা ভাষার ওপর। পরবর্তীতে রাভা সম্প্রদায়ের লোকেরা মনে করেন রাভা ভাষার নিজস্ব কোচ লিপি তৈরির। সেই মতো কোচ লিপি তৈরির উদ্যোগ নেয় রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল। দীর্ঘ ৫ বছরের প্রচেষ্টার পর অবশেষে রাভা ভাষার নিজস্ব লিপি তৈরি করতে সমর্থ হয় কাউন্সিল। সোমবার আলিপুরদুয়ার কালচিনি ব্লকের রাভা বস্তিতে আত্মপ্রকাশ করে রাভাদের কোচ লিপির।

জানাগেছে, এই কোচ লিপিতে রয়েছে ৭ টি স্বরবর্ণ ও ২৭ টি ব্যাঞ্জনবর্ণ। রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ব্রীজনাথ রাভা জানান, সারা ভারতে রয়েছে বারো লক্ষ রাভা জনজাতির লোক রয়েছে। প্রথম কোচ লিপি আত্মপ্রকাশ করল। এবার তৈরি হবে সিলেবাস তৈরি করবে নির্দিষ্ট কমিটি। সিলেবাস তৈরি হলেই রাভা ভাষায় তৈরি হবে নিজস্ব পুস্তক। তারা চাইছেন নিজস্ব ভাষার মাধ্যমে রাভা কোচ ভাষা সাহিত্য সংস্কৃতির সংরক্ষণ করতে। তারা এই কোচ লিপির স্বীকৃতি চাইছেন জাতীয় স্তরে। তারা রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিলের মাধ্যমে আসাম মেঘালয় ও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছে আবেদন করবেন যাতে এই লিপিতে রাভারা পঠনপাঠন করতে পারে।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাভা ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ব্রীজনাথ রাভা, রাভা স্ক্রিপ্ট রাইটার দয়চাঁদ রঙ্গাত রাভা। অসম, মেঘালয় পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থান থেকে রাভা কবি ও সাহিত্যিকরাও অংশ নিয়েছিলেন এদিনের অনুষ্ঠানে।