উত্তরবঙ্গ

বিধানসভায় মেলেনি টিকিট। ক্ষোভে দলবল নিয়ে বিজেপি ছাড়লেন রাজ্য কমিটির সদস্য দিলা শৈব্য।

শিলিগুড়ি, ২৬ সেপ্টেম্বরঃ বিধানসভায় ফাসিদেওয়া কেন্দ্রে বিজেপি দলের হয়ে টিকিট না পাওয়ার ক্ষোভে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির রাজ্য কমিটির সদস্য দিলা শৈব্য। একই সাথে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির বেশ কয়েকজন বুথ সভাপতি। রবিবার বিজেপি ছেড়ে আসা নেতা কর্মীদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূল কংগ্রেসের দার্জিলিং জেলা সভানেত্রী পাপিয়া ঘোষ।

সামনেই শিলিগুড়ি পৌরসভা ও শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের নির্বাচন। নির্বাচনের দিনক্ষণ চূরান্ত না হলেও দলকে শক্তিশালী করতে তৎপর দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেস। শিলিগুড়ি পৌর এলাকায় ইতিমধ্যেই নিজেদের দলে টেনেছে বাম কংগ্রেসের একাধিক কাউন্সিলারকে। বিধানসভা নির্বাচনের পর তৃণমূল কংগ্রেসের পালে হাওয়া আসতেই বিভিন্ন দল থেকে যোগদানের হিড়িক পড়েছে তৃণমূল কংগ্রেসে। আর এর পড়েই তৃণমূলে যোগদানের ক্ষেত্রে রাশ টানে তৃণমূলের দার্জিলিং জেলা নেতৃত্ব। বেশ কয়েকটি তৃণমূলে যোগদান কর্মসূচী বাতিল হয়ে যায়। তবে রবিবার বহু সংখ্যক বিজেপি নেতা কর্মীকে তৃণমূলে যোগদান করায় জেলা নেতৃত্ব। এদিন শিলিগুড়ি মহকুমার পাথরঘাটা এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের একটি দলীয় অনুষ্ঠানে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেন বিজেপির রাজ্য কমিটির সদস্য দিলা শৈব্য। একই সাথে এদিন তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন মাটিগাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের ২৫ জন বিজেপির বুথ সভাপতি, পাথরঘাটা জি পি-র দুই জন গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য বিজেপির ভগবান মুন্ডা , অঞ্জলি বর্মন সহ ছয় শতাধিক বিজেপির কর্মী সমর্থক।

এদিন বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর দিলা শৈব্য বলেন, তিনি ভেবেছিলেন গত বিধানসভায় ফাসিদেওয়া কেন্দ্রে তাকে প্রার্থী করবে দল। কিন্তু দলের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেও মেলেনি বিজেপির প্রার্থী পদের টিকিট। তাই ক্ষোভে তিনি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। তবে তৃণমূলে তিনি দলের একনিষ্ঠ সৈনিক হয়েই কাজ করবেন। এই প্রসঙ্গে দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভানেত্রী পাপিয়া ঘোষ বলেন, কোন শর্তসাপেক্ষে তৃণমূলে যোগদান করানো হচ্ছে না। দলে থেকে যারা যেমন কাজকরবেন, দল তাদের ঠিক সেরকমই সম্মান দেবে। তবে তিনি আশাবাদী ছয় শতাধিক নেতা কর্মী বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় তৃণমূল কংগ্রেস আরও বেশি মজবুত হল বলেই মনে করছেন পাপিয়া ঘোষ।