উত্তরবঙ্গ

খারাপ ফল হলে পদত্যাগের ঘোষণা তৃণমূল সভানেত্রীর। আগে থেকে হার বুঝতে পেরেই মন্তব্য, কটাক্ষ বিজেপির। পৌর নির্বাচন নিয়ে সরগরম কোচবিহার।

কোচবিহার, ২৩ সেপ্টেম্বরঃ আগামী পৌরসভা নির্বাচনে কোচবিহারে আশানুরুপ ফল না হলে, নিজ পদ থেকে ইস্তফা দেবেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভানেত্রী সুচিস্মিতা দেব। পুরভোটকে পাখির চোখ করে আজ এমনই ঘোষণা করলেন সুচিস্মিতা। অন্যদিকে, আগে থেকেই পরাজয় বুঝতে পেরেই এমন কথা বলেছেন তৃণমূল নেত্রী। দাবি, বিজেপি মহিলা মোর্চা সভানেত্রী মিনতি দাস ইশোর-এর। আর এই ইস্যুকে কেন্দ্র করেই এখন সরগরম কোচবিহারের রাজনীতি। কোচবিহার পৌর নির্বাচন ঘিরে এখন থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে তৃণমূল-বিজেপি রাজনৈতিক চাপান উতোর।

পৌরসভা নির্বাচনের ঘন্টা না বাজলেও, পৌরসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেলো কোচবিহার তৃণমূলে। লোকসভা এবং বিধানসভা নির্বাচনে কোচবিহার জেলায় ভরাডুবি হওয়ায়, এবার পৌরসভার নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখে প্রথম থেকেই কোমড় বেঁধে নেমে পড়েছে তৃণমূল। পৌরনির্বাচনকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার কোচবিহার অতিথি নিবাসে মহিলাদের নিয়ে বিশেষ সভা করেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভানেত্রী সুচিস্মিতা দেব শর্মা।

এদিন তিনি বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, লোকসভা এবং বিধানসভা নির্বাচনে কোচবিহারে তৃণমূল কংগ্রেসের ভরাডুবি হয়েছে। পৌর নির্বাচনে এমনটা ঘটলে তিনি তার পদ থেকে ইস্তাফা দেবেন বলে ঘোষণা করেন সুচিস্মিতা। তিনি আরো স্পষ্ট করে বলেন, মহিলা তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা কখনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেন না। তাই, সমস্ত মহিলা তৃণমূল কর্মীকে একত্রিত হয়ে পৌর নির্বাচনে লড়াই করার আহ্বান জানান সুচিস্মিতা দেব শর্মা। তৃণমূলের এদিনের বৈঠকে রিঙ্কু কর্মকারকে কোচবিহার জেলার কনভেনর করা হয়। পৌরসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে তৃণমূলের বুথ কমিটি গঠনের দায়িত্ব থাকছে তার ওপর।

অন্যদিকে, এদিন তৃণমূল জেলা সভানেত্রীকে পালটা দিয়েছেন কোচবিহার জেলা বিজেপি মহিলা মোর্চার সভানেত্রী মিনতি দাস ইশোর। বিজেপি মহিলা মোর্চা সভানেত্রী কটাক্ষের সুরে বলেন, আগে থেকে পরাজয় বুঝতে পেরেই এমন কথা বলেছেন তৃণমূল নেত্রী। মিনতি দাস ইশোর দাবি করেন, কোচবিহার পৌরসভার বাসিন্দারা তাদের সঙ্গেই আছেন। বিধান সভায় ওয়ার্ড ভিত্তিক ফলাফলে, কোচবিহার পৌরসভার ২০ টি ওয়ার্ডেই বিজেপি এগিয়ে রয়েছে এবং আগামী পৌর নির্বাচনে কোচবিহার পৌরসভা তাঁরাই দখল করবে বলে এদিন দাবি করেন জেলা বিজেপি সভানেত্রী মিনতি দাস ইশোর।