উত্তরবঙ্গ

প্রধান শিক্ষকের বদলি রুখতে আন্দোলনে পড়ুয়া ও অভিভাবকরা।

উত্তর দিনাজপুর, ২২ সেপ্টেম্বরঃ ‘আপনি যাবেন না স্যার৷' এই আর্তি নিয়েই প্রধান শিক্ষকের বদলি রুখতে আন্দোলনে নামলেন উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদ ব্লকের দেহুচী হাইস্কুলের পড়ুয়া ও অভিভাবকরা। স্কুল সূত্রে জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জের বাসিন্দা অরূপ সরকার ২০০৭ সালে ধূপগুড়ি থেকে বদলি হয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে দেহুচি হাইস্কুলে কাজে যোগ দেন। সেসময় এই স্কুলটি জুনিয়র হাইস্কুল ছিল। এরপর অরুপবাবুর প্রচেষ্টায় ২০১১ সালে মাধ্যমিকস্তরে ও তারও পরে ২০১৪ সালে উচ্চমাধ্যমিকস্তরে উন্নীত হয় স্কুলটি। বর্তমানে এই স্কুলে পড়ুয়ার সংখ্যা ৯০০ এবং শিক্ষকের সংখ্যা ২৭। ফলে স্কুলের সামগ্রিক উন্নয়ন নিয়ে অরুপবাবুর কাজে যথেষ্টই খুশি পড়ুয়াদের পাশাপাশি অভিভাবকরাও।

কিন্তু পরিবারিক সমস্যার কারণে, রায়গঞ্জ থেকে হেমতাবাদে এসে স্কুল শিক্ষকতার কাজ করতে অসুবিধার সন্মুখীন হচ্ছেন প্রধান শিক্ষক অরূপ সরকার। তাই সরকারি নির্দেশিকা মেনে বিদ্যালয় পরিবর্তনের আবেদন করেন অরুপবাবু। শিক্ষা দফতর থেকে সেই আবেদন গ্রহণ করে রায়গঞ্জ ব্লকের গয়ালাল রামহরি হাইস্কুলে যোগদান করতে তাঁকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি জানতে পেরেই হতাশ হয়ে পড়েছেন স্কুলের পড়ুয়া ও অভিভাবকরা৷ বদলি আটকাতে কার্যত আন্দোলনে নেমেছেন তাঁরা। পড়ুয়া এবং অভিভাবকদের বক্তব্য, ‘আমরা চাই স্যার এখানেই থাকুন। ওনার আমলে স্কুল যথেষ্ট উন্নতি করেছে। উনি চলে গেলে স্কুলের উন্নয়নের গতি থমকে যাবে। সুতরাং আমরা প্রধান শিক্ষককে এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছি।‘

এদিকে, এই পরিস্থিতিতে বদলির বিষয়ে আরও একবার ভাববার জন্য কিছুটা সময় চেয়ে নিয়েছেন দেহুচি হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক অরূপ সরকার। তিনি বলেন, ‘নিজের কিছু সমস্যার জন্য হেমতাবাদে গিয়ে ডিউটি করতে অসুবিধা হচ্ছে। সবার আবেগ রয়েছে। তাই এখন সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা যায় কি না আলোচনা করে দেখছি।‘