দেশ

পুরি থেকে ৪০০ কিলোমিটার দূরে ফেনী। শুক্রবার দুপুরেই ঘন্টায় ২০০ কিমি গতিতে আছড়ে পড়ার আশংকা।

ন্যাশনাল ডেস্ক, ২ মে: আকাশ মেঘে ঢাকা, প্রবল গর্জন শুরু হয়ে গিয়েছে সমুদ্রের। উত্তাল সমুদ্র। একেবারেই ফুলে ফেঁপে উঠেছে। যত সময় এগোচ্ছে ততই যেন ভয়াবহ আকার নিচ্ছে সমুদ্র। এই চিত্র উড়িষ্যার পুরির। প্রবল শক্তি সঞ্চয় করে ধেয়ে আসছে ফেনী। উড়িষ্যা থেকে মাত্র প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দূরে। শুক্রবার দুপুরেই তান্ডব শুরু করবে উড়িষ্যা অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গে। ফেনীর গতিবেগ ঘন্টায় ২০০ কিলোমিটার ছাড়িয়ে যেতে পারে আশংকা প্রকাশ করছে হাওয়া অফিস।

তিতলির গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ১১৫ কিলোমিটার। সেই রেকর্ড ভাঙ্গতে দ্রুত এগিয়ে আসছে সুপার সাইক্লোন ফেনী। ঘন্টায় ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতিবেগে তান্ডব চালাবে উড়িষ্যা উপকুলবর্তী এলাকায়। ঘড়িতে সময় যত এগোচ্ছে, হাওয়ার গতিবেগও ক্রমশ বাড়ছে। সমুদ্রের জল আরও ফুলে ফেঁপে উঠছে। ‘মারাত্মক প্রবল ঘুর্ণিঝড়’ আছড়ে পড়ার জন্য দ্রুত গতিতে এগিয়ে আসছে ওড়িশা উপকূলের দিকে।

বৃহস্পতিবার সকালে ওড়িশা উপকূল থেকে ফেনীর দূরত্ব এখন ৪৫০ কিলোমিটার। শক্তি বাড়িয়ে ক্রমশ এগচ্ছে এই মারাত্মক প্রবল ঘূর্ণিঝড়। বুধবার সন্ধ্যায় পুরী থেকে তার দূরত্ব ছিল ৬১০ কিলোমিটার। আর কলকাতা থেকে এবং দিঘা থেকে তার দূরত্ব ছিল যথাক্রমে ১০০০ এবং ৮০০ কিলোমিটার।

আবহাওয়া দফতর সূত্রের খবর, ওড়িশার ১৯টি জেলায় এর প্রভাব পড়তে পারে। প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্ধ্রপ্রদেশের তিনটি জেলায়। ১ মে থেকে ৫ মে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করেছে আবহাওয়া দফতর। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ইতিমধ্যে বৃহষ্পতিবারের মধ্যে সমস্ত পর্যটকদের হোটেল ছেড়ে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে ওড়িশা সরকার। বাঙালি পর্যটকদের জন্য পুরী-কলকাতা বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করেছে ওড়িশা সরকার। ১০৩ ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।

পুরী, কেন্দ্রাপড়া, বালেশ্বর, ময়ূরভঞ্জ, গজপতি, কটক, জাজপুর-সহ আট লক্ষেরও বেশি মানুষকে ওড়িশা উপকূলবর্তী অঞ্চল থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। প্রায় ৯০০ টি সাইক্লোন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। উপকূলবর্তী অঞ্চলের মানুষদের এই সাইক্লোন সেন্টারেই আপাতত রাখা হয়েছে।

গত বছর ঝড় ‘তিতলি’র মুখে পড়েছিল ওড়িশা। তিন লক্ষ মানুষকে ওড়িশা উপকূলবর্তী অঞ্চল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। ‘তিতলি’র গতিবেগ ছিল ১৫০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। সঙ্গে প্রচুর বৃষ্টিপাত। আর মৌসম ভবনের বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, স্থলভূমিতে আছড়ে পড়ার সময় ঘণ্টায় সর্বাধিক ২০০ কিলোমিটার বেগে ঝড় বইতে পারে।

শুরু হচ্ছে বাগডোগরায় বিমান চলাচল, সপ্তাহে চলবে মাত্র ৮ টি বিমান Read More..